HELLO SEXY LUND HOLDER FOR MORE PLEASE VISIT TELENOR T and CALL ME FOR REAL PHONE SEX / SMS @+1-984-207-6559 THANK YOU. YOUR X

Thursday, July 11, 2019

উফফফফফফ স্যার……. – ০৪

সেদিনের ঘটনার পর বেশ কয়েকদিন কেটে গিয়েছে। পরের সপ্তাহে বুধবার অপরাজিতার মেয়েটাও গেলো না দাদুবাড়ি। অধৈর্য হয়ে উঠলো বিহান, অধৈর্য অপরাজিতাও। চোখের ইশারায় কথা হতে লাগলো। কিন্তু কাজ হচ্ছে না। বাথরুম দুটো পাশাপাশি হওয়ায় একদিন বাথরুম থেকে বেরোনোর সময় জাস্ট চেপে ধরবে এমন সময় মেয়েটা ডাকতে অপরাজিতা পিছলে বেড়িয়ে গেলো।


গ্রামের শেষ দিকে একটা নদী আছে। অধৈর্য, অস্থির বিহান শান্তির খোঁজে নদীর ধারে গেলো বেড়াতে বিকেলে। সুন্দর গ্রাম্য পরিবেশে নদীর জলের শব্দ, তাতে সূর্যালোকের ছোঁয়া। মন ভালো হয়ে গেলো বিহানের। সন্ধ্যার মুখে গুনগুন করে গান গাইতে গাইতে ফিরছিলো বিহান। সেক্স নামক শব্দটার অস্তিত্বই খুঁজে পাচ্ছিলো না সে। কিন্তু ওই যে, যেখানে বাঘের ভয়, সেখানে সন্ধ্যে হয়। সনাতন বাবুর বাড়ির সামনে দিয়ে আসার সময় দেখে কামদেবী দাঁড়িয়ে রাস্তায়। লাবণ্য।


বিহান মনে মনে বললো, ‘দুই বাচ্চার মা হয়ে গেছে, এখনও জেল্লা কমে না, মনে হয় আরও দশটা বাচ্চা দিয়ে দিই’।
কাছে এসে বিহান- আরে বৌদি। কেমন আছেন? তা সন্ধ্যায় রাস্তায়?
লাবণ্য- আরে স্যার আপনি। কোথায় গিয়েছিলেন। নদীতে বুঝি?


বিহান- হমমম। আমরা শহুরে মানুষ। শহরে এত সৌন্দর্য উপভোগ করার সুযোগ হয় না। তাই আর কি?
লাবণ্য- তা অবশ্য ঠিকই বলেছেন। আমাদের দেখতে দেখতে গা সওয়া হয়ে গিয়েছে। চলুন না। চা খাবেন।
বিহান- না থাক। আজ আর না। কাল তো পড়াতে আসছিই।


লাবণ্য- ও হ্যাঁ। আপনাকেই রাতে ফোন করতাম। কাল পড়াতে আসার ব্যাপারে। ছেলে আর ওর বাবা শহরে গেলো মেয়ের কাছে। কাল ফিরবে সন্ধ্যায়। তাই না আসলেও চলবে কাল।
বিহান- ও আচ্ছা। তা আজ আপনি একা থাকবেন? ভয় করবে না?


লাবণ্য- না না। আমার সাহস আছে। আর ঘেরা বাড়ি। চিন্তার কিছু নেই। তবে ওই আর কি। একা একা সময় কাটে না। চলুন না স্যার। একটু চা খেয়ে যাবেন। গল্পও হবে।


বিহান ভাবলো আর কিছু না হোক, চোখের সুখ টা তো হবে। এমনিতেও অপরাজিতাকে পাচ্ছেই না। কি যে হয়েছে। বিকাশ সারাদিন বউকে নিয়ে দরজা বন্ধ।


বিহান- আচ্ছা। বেশ তবে চলুন।
দুজনে বাড়িতে ঢুকলো।
লাবণ্য- আপনি বসুন স্যার। আমি নিয়ে আসছি।
বিহান- ঠিক আছে। নদীটা থেকে এলাম, তাই একটু হাত-মুখ ধুয়ে নিই।
লাবণ্য- বেশ বেশ।


বিহান বাথরুমে গেলো। লাবণ্যর ব্রা পড়ে আছে এক কোণে। আগুন ধরে গেলো দেখে। হাতে নিলো। ৩৬ সাইজ। গন্ধ নিলো বিহান। তারপর হাত মুখ ধুয়ে বেরিয়ে এলো। ততক্ষণে চা হয়ে গিয়েছে লাবণ্যর। দুটো কাপে সাজিয়ে বসেছে লিভিং রুমে। দুজনে চা পর্ব সাড়তে সাড়তে বিভিন্ন গল্প করতে লাগলো।


মাঝে মাঝে বিহান যদিও নির্লজ্জের মতো তাকিয়ে দেখছে লাবণ্যের অপরূপ রূপ। লাবণ্য বুঝতে পারছে না যে তা নয়। তার সৌন্দর্য সম্পর্কে সে অবগত। পুরুষদের নজর তার উপর বরাবর। তবে এই বয়সে এসেও দুটো বাচ্চার মা হবার পরও বিহানের মতো বাচ্চা ছেলের চোখ আটকে যাচ্ছে তার শরীরে, ভেবেই কেমন যেন হয় একটা লাবণ্যের। তবে সেটা অনেকটা ভালো লাগাই।


খারাপ লাগা নয়। বিহান অবিবাহিত। অদিতিটাও দিন দিন উচ্ছন্নে যাচ্ছে। লাবণ্য ভাবছে অন্য কথা। অন্য উদ্দেশ্য। যদি অদিতির সাথে বিহানের বিয়ে দেওয়া যায়। বিহানদের যা কিছু আছে শুনেছে। খারাপ থাকবে না মেয়ে। আর বিহানও সুপুরুষ।


লাবণ্য- তারপর ও বাড়িতে কেমন আছেন? অপরাজিতা দেখাশোনা করে ঠিকঠাক?
বিহান- হ্যাঁ করে। রান্নার লোক আছেই। তবু বৌদি মাঝে মাঝে ভালো রান্না হলে দিয়ে যায়।
লাবণ্য- বেশ বেশ। আজ তবে এখানেই খেয়ে যান।
বিহান- না না। আজ আর না।


লাবণ্য- না না। খেয়ে যেতেই হবে। আর আমিও একাই আছি। সময় টাও কেটে যাবে কিছুক্ষণ।
বিহান মনে মনে ভাবলো, ‘আমি তো তোমার সাথে একটা সারা রাত কাটাতে চাই সুন্দরী, কিন্তু তোমার ক্যারেক্টার টা তো বুঝতে পারছি না।’


লাবণ্য- আপনি বসুন। আমি রান্না বসাচ্ছি।


বিহান- এটা কিরকম হয়। আমি তাহলে বোর হয়ে যাবো। না হয় চলুন আমিও হেল্প করছি আপনাকে।
লাবণ্য- আপনি রান্না পারেন?


বিহান- টুকটাক। বাইরে পড়তাম কলেজে।
লাবণ্য- বেশ তবে। আসুন।


দুজনে কিচেনের দিকে গেলো। যদিও খুব বেশী কিছু হলো না। ডাল, ভাত, ভাজা আর মাছ। দুজনে মিলে একে অপরকে সাহায্য করতে লাগলো। কিন্তু বাধ সাধলো অন্য জায়গায়। লাবণ্য এরই মাঝে একবার বাথরুমে গেলো। গিয়ে দেখে তার ব্রা এর স্থান চেঞ্জ হয়ে গিয়েছে। কোণে পড়ে থাকা ব্রা দরজার পাশে।


বাড়িতে কেউ নেই। বিহান ঢুকেছিলো বাথরুমে। তবে কি বিহান তার ব্রা ধরেছে? লাবণ্য বুঝতে পারছে না তার রাগ হচ্ছে কি ভালো লাগছে। বিহান তার দিকে তাকায় জানে। শুধু বিহান না, সব পুরুষই তাকায়। বয়সের ছাপ বোঝা যায় না শরীরে। তবে কি বিহান তাকে ফ্যান্টাসি করে?


এই গ্রামেরই মেয়ে লাবণ্য। প্রেম, পরকিয়া কখনও ভাবেনি। পড়াশুনা করেছে। বড় হয়েছে। সনাতনের সাথে বিয়ে হয়েছে। সনাতন তাকে ভালোবাসে। দুটো সন্তান দিয়েছে। কিন্তু কোনোদিন ভাবেনি অন্য কিছু। কিন্তু এই যে বিহান এসে তার ব্রা তে হাত দিয়েছে। সাইজও জেনে গিয়েছে নিশ্চয়ই। লাবণ্য তো বিহানকে অদিতির জন্য ভাবছিলো।


কিন্তু বিহান তো তার দিকে আকৃষ্ট। অদিতি যদিও লাবণ্যের ক্ষুদ্র রূপ। বলা যায়, চোখগুলো আরও বেশী আকৃষ্ট ওর। তবে তো বিহান অদিতিকেও পছন্দ করবে। যাই হোক বেশী দেরি না করে লাবণ্য বাথরুম থেকে বেরোলো। বিহান ওভেনের আঁচ কমিয়ে মোবাইল খোঁচাচ্ছিল।


লাবণ্য- কি হলো?
বিহান- এই তো মাছ হয়েই গিয়েছে।
লাবণ্য- বেশ তবে। এখনি বসবেন খেতে?
বিহান- বসা যায়। তবে একটু পরে খাওয়াই ভালো। রেস্ট করি একটু।
লাবণ্য- বেশ। অ্যালবাম দেখবেন? ফ্যামিলি অ্যালবাম?
লাবণ্যের উদ্দেশ্য অদিতির ছবিগুলো দেখিয়ে আকৃষ্ট করা।
বিহান- বেশ আনুন।


লাবণ্য অ্যালবাম নিয়ে এলো। দুজনে দেখছে একসাথে। লাবণ্য, অদিতি আর অপরাজিতা তিনজনের ছবিই দু’চোখ দিয়ে গিলে গিলে খাচ্ছে বিহান। নজর এড়াচ্ছে না লাবণ্যের। তবে মাঝে মাঝে লাবণ্য অদিতির প্রশংসাও করছে। কিন্তু হঠাৎ লাবণ্যের চোখ গেলো বিহানের প্যান্টের দিকে।


বেশ উঁচু হয়ে আছে চেনের জায়গাটা। ঘেমে গেলো লাবণ্য। সে কি ভুল করে ফেললো কিছু? বাড়িতে কেউ নেই। তিনজনের ছবি যেভাবে দেখেছে এতক্ষণ, তাতে কামার্ত হওয়া অস্বাভাবিক নয়। লাবণ্য নিজেই ডেকেছে বিহানকে। নিজেই বিহানকে অজান্তে কামার্ত করে তুলেছে। এখন যদি বিহান তাকেই ধরে। কি করবে সে? কিন্তু তার আগে জানা দরকার, বিহান কার প্রতি বেশী আকৃষ্ট। যদি অদিতি বা অপরাজিতার প্রতি হয়, তাহলে তার ভয়ের কিছু নেই।


লাবণ্য- শুনুন না মাস্টারমশাই। আপনি বাইরের মানুষ। পক্ষপাতিত্ব নেই। আচ্ছা সত্যি করে বলুন তো অদিতি আর অপরাজিতার মধ্যে কে বেশি আকর্ষণীয়া?
বিহান- অদিতি। তবে অদিতির চেয়েও আকর্ষণীয়া আপনি।
প্রশংসা কোন নারী পছন্দ করে না?
লাবণ্য লজ্জা পেয়ে গেলো, “ধ্যাত, আপনি না?”


বিহান- সত্যি বলছি। মানছি আপনি আর অদিতি অনেকটা একরকম। তবে আপনার বয়স হিসেবে যেভাবে নিজেকে মেইনটেইন করেছেন, তাতে বলতেই হবে আপনি বেস্ট।
লাবণ্য ইতস্তত করতে লাগলো।
লাবণ্য- খাবেন এখন?


বিহান- হমমম। কোনো অসুবিধে নেই।
লাবণ্য খাবার সাজাতে লাগলো।
লাবণ্য- আপনি বিয়ে করবেন না?
বিহান- প্রকৃত সুন্দরী পেলে করবো বৈকি।
লাবণ্য- পাননি এখনও?


বিহান- যদি খারাপ না পান, তাহলে বলতে পারি?
লাবণ্য- বলুন না।
বিহান- আপনি একজন প্রকৃত সুন্দরী। কিন্তু আপনি তো বিবাহিত।


লাবণ্য- তাই? এইমাত্র বললেন আমরা মা মেয়ে একই রকম। তাহলে তো মানবো অদিতিকেও আপনার পছন্দ।


বিহান- হমমম। অদিতিকে যে দেখবে, একবারে রাজি হয়ে যাবে। তবে কি বলুন তো, আপনার রূপের কাছে অদিতি ফিকে। দুধের স্বাদ ঘোলে মেটাতে আমি অদিতিকে বিয়ে করতেই পারি। কিন্তু আপনার কথা মনে পড়বে।


বিহানের অকপট, নির্ভীক স্বীকারোক্তিতে লাবণ্যের ভেতর কেঁপে গেলো।
লাবণ্য একদম চুপচাপ।
বিহান- খারাপ পেলেন?
লাবণ্য- না, ঠিক তা নয়।


বিহান উঠে লাবণ্যের পাশে দাঁড়ালো, ‘ইউ আর দা বেস্ট, ইউ আর দা বেস্ট ম্যাম’।
লাবণ্য- মাস্টারমশায়, প্লীজ এভাবে বলবেন না। খেতে বসুন।


বিহান কথা না বাড়িয়ে খেতে বসলো। দুজনে চুপচাপ খেতে লাগলো। কেউই বিশেষ কোনো কথা বলছে না। খাওয়া শেষ। অদ্ভুত একটা নীরবতা। বিহান বুঝলো লাবণ্য হয় ক্ষেপেছে, নয় অস্থির। এদিকে লাবণ্য আজ সত্যি অস্থির। ৪৫ বছর বয়স পেরিয়েছে। সুন্দরী সে। সনাতন আজও তাকে পাগলের মতো ভালোবাসে।


কিন্তু আগে যেভাবে ক্ষেপা ষাঁড়ের মতো আদর করতো, এখন করে না। এত বছর হয়ে গেলো। এটাই স্বাভাবিক। বিহানকে দেখে বিয়ের পরপর সময়ের সনাতনকে মনে পড়তে লাগলো লাবণ্যের। এতটা বুভুক্ষু দৃষ্টিতে সনাতনও বোধহয় কোনোদিন তাকায়নি তার দিকে। লাবণ্য না করার পরেও শরীরের প্রতিটি খাঁজে বিহানের চোখ ঘুরে বেড়াচ্ছে।


বিহান- আজ তবে আসি?
লাবণ্য- আসবেন। আরেকটু বসে যেতেন।
বিহান- হমমম। বসতে পারতাম। কিন্তু আপনার অস্বস্তি হচ্ছে। হ্যাঁ তবে আমি ভুল কিছু বলিনি।
লাবণ্য- কোন ব্যাপারে?


বিহান- অদিতি ও আপনার ব্যাপারে। অদিতি সত্যিই ভীষণ আকর্ষণীয়া। কিন্তু বিশ্বাস করুন প্রথমদিন আপনাকে দেখার পরই আমার মাথা পুরো খালি হয়ে গিয়েছিলো। ভাবছিলাম এত সুন্দরী কেউ সত্যিই হতে পারে? বিশেষ করে এই বয়সে এসে? এখন আমি জানি আপনি চাইছেন আমি অদিতিকে বিয়ে করি। কিন্তু অদিতিকে বিয়ে করলে আপনি আমার শ্বাশুড়ি মা হবেন। সেটা সম্ভব না আমার পক্ষে।
লাবণ্য- কেনো আমি কি শ্বাশুড়ি হবার যোগ্য নই?


বিহান- না, তা কেন হবেন না? কিন্তু আমি মানতে পারবো না।
লাবণ্য- কেনো?


বিহান- আপনি আবার রাগ করবেন শুনলে, কিন্তু সত্যি টা আমিই স্পষ্ট করেই বলতে চাই, আর তা হলো, আপনাকে প্রথমদিন দেখার পর সারারাত ঘুমাতে পারিনি আমি। বুঝতেই পারছেন। অদিতি আপনার ডুপ্লিকেট। আপনার প্রতি আমি দুর্বল। অদিতিকে আদর করতে গিয়ে আপনার কথা মনে পড়বে আমার। আর তাতে দুজনকেই ঠকানো হবে। সেটা আমি চাই না।


আবার বিহানের অকপট স্বীকারোক্তি, আবার ভেতরটা কেঁপে গেলো লাবণ্যের। তাকে দেখে কেউ সারারাত ঘুমাতে পারে না? সত্যিই কি সে এতটাই সুন্দরী? সেক্সি? লাবণ্য নিশ্চুপ।
বিহান- আসি ম্যাম?
লাবণ্য- আপনার ইচ্ছে।


বিহান- এভাবে বলবেন না। আমার ইচ্ছে তো থেকে যাওয়া?
লাবণ্য- কেনো?
বিহান- সারারাত ধরে দেখবো আপনাকে।
লাবণ্য- ছি! বিহান বাবু।
বিহান- তাই তো বলছি, আসি।


লাবণ্য কোনো উত্তর না দিয়ে লিভিং রুমে সোফাতে গিয়ে বসলো। দরজা টা বন্ধ করলো না কিন্তু। বিহানের বুঝতে বাকী রইলো না লাবণ্যের মনের অবস্থা। আজই সুযোগ। সে আবার ঘরে ঢুকলো। লাবণ্যের গা ঘেঁষে বসলো বিহান।
বিহান- ম্যাম।
লাবণ্য চুপ।
বিহান- ম্যাম আমি শুধু সারারাত ধরে দেখতে চাই আপনাকে।
লাবণ্য- কি হবে দেখে?
বিহান- জানিনা।
লাবণ্য- তাহলে অদিতিকে বিয়ে করবেন?
বিহান এবার আশ্চর্য হয়ে গেলো।


বিহান- কি ব্যাপার ম্যাম? আপনি অদিতির বিয়ে দেবার জন্য এতকিছু করতে রাজী? কিন্তু কেন?
লাবণ্য কান্নায় ভেঙে পড়লো। বিহান ইতস্তত করতে লাগলো এবার। শেষে দুহাতে লাবণ্যের দুই হাত ধরলো।
বিহান- কাঁদবেন না ম্যাম, কাঁদবেন না। বলুন আমাকে কি হয়েছে।


তবে এই ঘটনায় প্রথমবারের মতো লাবণ্যের শরীর ধরতে পারলো বিহান। কি তুলতুলে নরম শরীর। যতটা ভেবেছিলো, তার চেয়েও বেশী নরম। মোমের মতো মসৃণ। বিহান অস্থির হয়ে উঠলো।
লাবণ্য- আমার মেয়েটাকে বিয়ে করুন বিহান। আমি জানি বিয়ের পর সব ঠিক হয়ে যাবে।
বিহান- আরে হয়েছে টা কি?


লাবণ্য- শহুরে জীবন। উচ্ছন্নে গিয়েছে একদম। কোথায় কি করছে, না করছে, কোনো ঠিক নেই। একবার অ্যাবরশন করাতে হয়েছে। কে বিয়ে করবে ওই মেয়েকে?
বিহান- আমিই বা তাহলে কেনো করবো?


লাবণ্য- আপনি ভালো মানুষ, তাই। আর আপনি শহুরে মানুষ। শিক্ষিত। আপনি জানেন এসব এখন কমন ব্যাপার, আর কেউ তো সেটা বুঝবে না। প্লীজ বিহান। মেয়েটার বিয়ে না দিতে পারলে আমি সুখ পাচ্ছি না।


বলে আবার কান্নায় ভেঙে পড়লো।


চলবে….
কেমন লাগলো জানান [email protected] ঠিকানায় মেইল করে। আপনার পরিচয় গোপন থাকবে।

No comments:

Post a Comment