HELLO SEXY LUND HOLDER FOR MORE PLEASE VISIT TELENOR T and CALL ME FOR REAL PHONE SEX / SMS @+1-984-207-6559 THANK YOU. YOUR X

Saturday, June 15, 2019

এক যে ছিল সুখপিয়াসী নারী – সপ্তম এপিসোড

আগের পর্ব


বন্ধুরা আগের দিন তোমাদের সাথে কথা বলা হয়নি। আমার দেরিতে আপডেট এর জন্য অনেকে ক্ষুন্ন থাকবে, কিন্তু কি করব বলো সময় এর খুব অভাব। অনেকে বলেছিলে সুখবর টা দিয়ো। মিস্টিমুখ করাতে পারব না পাঠকবন্ধুদের । সরি । তো সুখবর টা শেয়ার করি, আবার আমি নতুন মাতৃত্বের স্বাদ বা জালা সয়ে এখোনো ধকল কাটিয়ে উঠতে পারিনি।


আবার একটা আমার মেয়ে হলো আমার । জানি না ছেলে চাই বলে কি, আমাকে ভাগ্যের পরিহাস মেনে নিতে হচ্ছে ! যাইহোক বড্ড বেশি আবেগি হয়ে যাচ্ছি, আমার মেয়ে কিন্তু খুব কিউট। পাপা’স প্রিন্সেস। ব্যক্তিগত শেয়ার অনেক হলো এবার কাহিনীর কথায় আসি।


কাহিনী কিন্তু এবার অত সেক্সুয়াল রাখছি না, উপন্যাস টার স্বার্থে , বর্ননাও বিশেষ দিতে পারছি না আমার টার্গেট গল্প টা শেষ করার তাই যা ভেবে রেখেছিলাম কিছু ছাটাই করছি জোড়াতালি দিচ্ছি। পাঠক আশা করি ক্ষমার চোখে দেখবেন।


অনেক হেজিয়েছি এবার রেগে যাবেন। চলুন শুরু করি ।


আজ রবিবার ।


গৌরাঙ্গী বুকে অনেক সাহস জমিয়ে মাকে জিসানের কথা বলেছে। গৌরাঙ্গী আজকাল জিসানকে ছাড়া এক মুহুর্ত কিছু ভাবতেই পারে না। জিসানের সাথে কাটানো প্রত্যেকটা মুহুর্ত ওর ভাবতে ভীষন ভালো লাগে। জিসান অত বড়োলোকের ছেলে হয়েও যেন কেমন মিডল ক্লাস সেজে থাকে। গৌরাঙ্গীর পেছনে অনেক খরচ করে কিন্তু নিজে যেন কেমন টাইপ হয়ে থাকে ।


বড়োলোক বন্ধু দের সাথে আড্ডা মারে না। ধুকতে থাকা কলকাতার গড়ের মাঠে বসে গিটার বাজিয়ে গান করে। কিছু ভিখারির বাচ্চারা ওর গান শোনে। সন্ধের মুখে সবার জন্য হয় লজেন্স নয় খেলনা নইলে বিলুপ্তপ্রায় “খুচরো” টাকা দিয়ে যায় ও। এই ছেলেকে বুঝিয়ে গৌরাঙ্গী পারে না।


জিসানদের যা টাকা আছে জিসান নিজে মিউজিক এর টেলিভিশন শো করতে পারে। নিজে গান লেখে, গৌরাঙ্গী ও বহুবার ওর সাথে রেসকোর্স এর মাঠে গিয়েছে। প্রথম প্রথম কিরকম একটা বাধতো। এখন গৌরাঙ্গী নিজে টিফিন থেকে খাবার নস্ট হলে ভিখারির বাচ্চা গুলোদের খাওয়ায়, ওদের জন্য বেলুন কিনে আনে আর ওর জানের জন্য আনে গরম ধোঁয়া ওড়া ভুট্টা ।


জিসান কে যেরকম চকোলেট দেখতে দেখতে ছেঁড়া ফাটা জামা পরে থাকলেও মেয়েরা দেখতেই থাকে। গৌরাঙ্গীর ভীষন হিংসা হয় । মিশনে থাকতেও মেয়েদের হার্টথ্রব ছিল জিসান। এখন ওর কলেজেও বোধহয় মেয়েগুলো ওর গায়ে পড়ে ন্যাকামি করে। গৌরাঙ্গীর এসব একদম সহ্য হয় না। ও দেখেছে জিসানের সঙ্গে কোথায় যাওয়ার সময় ধেড়ে ধেড়ে মেয়েগুলো কেমন ঘুরে ঘুরে দেখে। ওকে কেমন চোখ দিয়ে যেন চেটে খায় । আন্টির বয়সি রাও বাদ নেই ! গৌরাঙ্গী মাঝে মাঝে ভাবে জিসান কে কালো টিকা লাগিয়ে দেবে।


যাইহোক মা তো শুনেই গম্ভীর স্বরে বলেছিল – ” তোমার এখন এসব করার বয়স নয় গৌরাঙ্গী। জীবন এখন অনেক পড়ে আছে, এখন মন দিয়ে পড়াশোন্স করো। ”


” মম আমি ওকে হারাতে পারবো না, ওকে ছাড়া আমি বাঁচতে পারব না । ” মিনমিন করে বলেছিল গৌরাঙ্গী।


রীনা মেয়ের কথা শুনে তো স্থির । বলে কি মেয়েটা ! রীনা চায়নি ওর মেয়েরা লাভ ম্যারেজ করুক। রীনা চায় মেয়েদের ও অশোকের মতো বর হবে। দিনরাত খাটুনি করে উপার্জন করবে এদিকে বাড়ি এসে বউয়ের গোলাম হয়ে থাকবে । বউ উঠতে বল্লে উঠবে বসতে বল্লে বসবে।


নিজের ঘর ছেড়ে শ্বশুরবাড়ি ঘরজামাই হয়ে থাকবে। সেরকম ছেলে তো রীনা এখোনো দেখতে শুরু করেনি। প্রয়োজনে ও নিজে টেস্ট করে নেবে। কি ই বা বয়স ! মেয়েদের এখন ষোলো বছর বয়স। তাই রীনা মাথায় জামাই খোঁজার চিন্তাই আনেনি। এবার ওকে নড়েচড়ে বসতে হবে ।


ঠান্ডা হিমশীতল কন্ঠে বলেছিল রীনা – ” ঠিক আছে কাল সকালে এগারোটায় আসতে বোলো ছেলে টাকে। ”


গৌরাঙ্গীর তো বিশ্বাস ই হচ্ছিল না এত সহজে কাজ হয়ে যাবে ও বলল ” কিন্তু মম কাল তো আমার স্কুল রয়েছে ওই সময়, তারপর ওর সময় হবে কিনা…… ”


থামিয়ে দিয়েছিল রিনা – ” ওর হবে কি হবে না এটা কোনো ম্যাটার না তোমার জন্য ওকে আসতেই হবে। আর হ্যা আমাদের মিটিঙে তুমি থাকবে এই কথা একবার ও বলিনি । স্কুল শেষ করে মাসির কাছে চলে যাবে অনেকদিন থেকে যেতে বলছিল। ”


ঈস জিসান আসবে ওর বাড়িতে গৌরাঙ্গীর ই থাকা হবে না ও ক্ষুদ্র দাবী করল ” মম কাল স্কুলে তেমন কাজ নেই…”


” ঠিক আছে আসতে বারন করে দাও ওকে। অনেকদুর এগিয়ে গেছো নাকি? ফিজিক্যাল রিলেশান হয়ছে? তুমি ভার্জিন আছো তো এখনো ?


” রীনা উত্তেজিত হয়ে পড়ছিল। গৌরাঙ্গীর খুব খারাপ লাগছে। ওর সঙ্গে মা কখোনো এরকম কথা বলেনি।


” আমি স্কুলে যাবো মাসির ওখানেও যাবো প্লিজ মম রেগে যেও না প্লিজ ওর সাথে দেখা করো। আমি এখুনি ওকে বলে দিচ্ছি। ” গৌরাঙ্গী অনুনয় বিনয় করছে।


” ঠিক আছে সকাল এগারোটায় আসতে বোলো। ” রীনা ঠান্ডা স্বরে বলল। এই হিসহিসে ঠান্ডা স্বরে অশোকের প্যান্টে হিসি হয়ে যায় ।
গৌরাঙ্গী আনন্দের চোটে মাকে জড়িয়ে ধরে চুমু দিলো ” আই লাভ ইউ মম ” ।


” লাভ ইউ বাবু। অ্যাই অ্যাই জানোয়ার চা কোথায় আমার? মাথা যন্ত্রনা করছে তাড়াতাড়ি আন। সকালের মত যদি চা করেছ জুতিয়ে খাল খুলে নেবো। ” হাক দিলো রীনা।


হাতে চায়ের কাপ নিয়ে ঘরে ঢুকলো অশোক।


মায়ের ঘর থেকে বেরিয়ে কাঁপ দিয়ে যেন জ্বর ছাড়ল গৌরাঙ্গীর। গৌরাঙ্গী খুশির চোটে নাচতে নাচতে ওদের রুমে চলে এসে শিবাঙ্গী কে জড়িয়ে ধরে চুমুর বন্যা বইয়ে দিচ্ছে।
” কি হয়েছে বলবি তো বোনু ? মা কি বলল? ” শিবাঙ্গীর প্রশ্ন।


” মা রাজি হয়েছে বোনু। ইয়াহ! নাউ আয়াম দ্য হ্যাপিয়েস্ট পার্সন অফ দ্য ওয়ার্ল্ড। কাল আসতে বলেছে জিসান কে। ” গৌরাঙ্গীর চোখে মুখে খুশির বন্যা।


গৌরাঙ্গীর আর তর সইছে নার জিসান কে শোনাতে । ফোন লাগালো জিসানকে।
“বেবি মম তোমায় কাল আসতে বলেছে । এগারোটার সময় চলে আসবে। ” গৌরাঙ্গী বলল।
” কিন্তু কাল আমার যে কাজ রয়েছে। ” জিসান সামান্য টেনসড।


” এই তুমি ভালোবাসো আমায় হ্যা! জানো কত কস্ট করে মম কে রাজি করিয়েছি? আমি কিচ্ছু শুনতে চাই না । আর হ্যা ব্ল্যাক জামা পরবে মম দেখলেই তোমায় পছন্দ করে নেবে। ” গৌরাঙ্গী কপট রাগ করে বলল।
” ওকে বাবু যাবো । আর কিছু করতে হবে ? ” জিসান বলল।


” না আর কিছু না। ওটা তো কাল । আর আজ সন্ধেতে প্রিন্সেপ ঘাটে আসবে। তোমার চকলেট ঠোঁট খেতে ইচ্ছা করছে। ” গৌরাঙ্গী চোখ টিপে হেসে বলল।


জিসান এর টেনসান হচ্ছে। ও কখোনো গৌরাঙ্গীদের বাড়িতে যায়নি। রীনা আন্টি কে বাইরে দেখেছে । দেখেই খুব রাগী মনে হয় আন্টিকে। কাল গৌরাঙ্গীদের বাড়ি আন্টির সাথে দেখা করতে হবে । কি বলবেন না বলবেন! হাজার প্রশ্ন মাথায় । সময় যত গড়ায় জিসানের পেটের ভিতর গুড়্গুড় করে ওঠে ।


সন্ধেবেলা প্রিন্সেপঘাটে জিসানকে বড় নিশ্চুপ লাগছিল গৌরাঙ্গীর । ছেলেটা ওর কাছে এলে একটা আলাদা এনার্জিতে দেখায় আজ যেন অন্যরকম। গৌরাঙ্গী লিপলক করে কিস করেছে কিন্তু যেন কেমন একতরফা। জিসানের যেন কোনো রেসপন্স নেই। গৌরাঙ্গী জানে কেন। যেমন ওর বুকের ভিতর শুকিয়ে গিয়েছিল জিসানের মাকে দেখে।


তেমন জিসানের ও আজ ভয় করছে। গৌরাঙ্গী একবার ই জিসান দের বাড়ি গিয়েছিল। বাড়ি তো নয় যেন কেল্লা। জিসানের মা প্রথম দেখাতে ওর দিকে যেভাবে তাকিয়ে হেসেছিলেন গৌরাঙ্গী খুব লজ্জা পেয়েছিল। যেন আন্টি বৌমা পেয়ে গেছেন এমন ই ছিল সেই হাসি টা। জিসান ইন্ট্রোডিউস করিয়েছিল – ” মা, গৌরাঙ্গী। গৌরাঙ্গী , মা। ”


আন্টির মুখটা অন্ধকার হয়ে গিয়েছিল তখন কেন গৌরাঙ্গী নানারকম চিন্তা করে, হয়ত জিসান সামনে যেমন দেখায় বাস্তবে হয়ত মায়ের সাথে সম্পর্ক খারাপ। সেই জন্য হয়ত আন্টির মুখ কালো হয়ে গিয়েছিল যখন জিসান পরিচয় করাচ্ছিল। জিসানের মা বলেছিলেন ” ঘরে নিয়ে যা , খাবার পাঠিয়ে দিচ্ছি। গৌরাঙ্গী, কফি খাবে না কোল্ডড্রিংস ? ”


” না না আন্টি আপনাকে ব্যস্ত হতে হবে না। আমি কিছু খাবো না । ”
” তা বল্লে হয় ! ”


গৌরাঙ্গী জিসানের রুমে ঢুকে তো ওকে দু চারটে কিল মেরেছিল।
” কি অবস্থা ঘরের হ্যা? ”


যেখানে সেখানে জিনিস ছড়িয়ে রয়েছে, মেঝে তে ছড়িয়ে গান লেখা কাগজ। চারদিকে ছেড়ে রাখা জামাপ্যান্ট। ওহ গড ছেলেটা এত আগোছালো ! গৌরাঙ্গী লেগে পড়েছিলগোছ । জামা প্যান্ট গুছিয়ে আলমারিতে রেখে বালিশ জায়গামতো রেখে বেডসিট গুছিয়ে ঘরটা গোছগাছ করে দিয়েছিল। জিসান তো দেখে বলেছিল “এত পরিপাটি জায়গায় থেকে আমার অভ্যাস নেই।” আরো একটা কিল খেয়েছিল।
কাজের লোক কফি, চকলেট কেক, কাজুবাদাম , কিসমিস ট্রে তে করে দিয়ে গিয়েছিল।


যখন গৌরাঙ্গী চলে যাচ্ছিল জিসানের মা এসেছিলেন। ” বাব্বা! একি ঘর দেখছি ! ছেলেটা যে মানুষ হয়ে গিয়েছে । ” বলে গৌরাঙ্গীর দিকে তাকিয়ে জিসানের মা চোখ টিপেছিলেন।


জিসান এর মুড খারাপ থাকলে গৌরাঙ্গীর মনে হয় পুরো পৃথিবী মন খারাপ করে আছে। জিসানের কোলে বসে প্রিন্সেপ ঘাটে কানে কানে বলেছিল গৌরাঙ্গী ” চিন্তার কিছু নেই বেবি, আমাদের রিলেশানশিপ টা শীঘ্রই একটা পরিনতি পাবে, কেউ কখোনো আমার থেকে তোমাকে আলাদা করতে পারবে না, তোমার আশঙ্কা সত্যি হবে না আই উইল প্রুভ ইট বাবু। “। তাও জিসান টেনসান মুক্ত হতে পারে না ।।


আজ অশোক অফিস কামাই করেছে। কিই বা করবে বউয়ের আদেশ। এখন সোফায় বসে ওর বানানো চা খাচ্ছে বউ, অশোক ভালো বরের মত মেঝেতে বউয়ের পায়ের কাছে বসে বউয়ের পা টিপছে। রীনা আজ বেলা দশটায় ঘুম থেকে উঠেছে। উঠেই চান করে নিয়েছে। আজ রীনা প্রচুর সেজেছে অপ্সরা পর্যন্ত হার মানবে রীনার সৌন্দর্যে।


ব্ল্যাক রঙের স্লিভলেস ভেলভেটের সরু ব্লাউজ পরেছে, অর্ধেক স্তন প্রদর্শন করে শাড়ি পরেছে , শাড়ি রীনা সবসময় নাভীর অনেক নিচে পরে আজ ও সোনারঙা শাড়ি টাও নাভীর অনেক নীচে পরেছে। ফর্শা সামান্য মেদযুক্ত পেট যেকোনো পুরুষকে পাগল করে দেবে। ফর্সা পেটে সুগভীর নাভীর নীচে Pirates দের নোঙরের ট্যাটু করা। চুল খুলে রেখেছে। কপালে লাল বিরাট তিলক দিয়েছে । সবমিলিয়ে যেন রীনা জ্যান্ত দেবী। এগারোটা বাজতে চলল। এখুনি এসে পড়বে গৌরাঙ্গীর বয়ফ্রেন্ড । অশোক কে বলল ” থাক অনেক পা টিপেছ, এবার ও ঘরে যাও ।”


রীনা ছেলেটাকে দেখতে চায়। কার এত সাহস হয় বাঘিনীর খাঁচা তে মাথা ঢোকায় ! বেল বাজলো । রীনা দরজা খুলতে গেল।
” ভালো আছেন আন্টি? ” গৌরাঙ্গীর কথা মতো ব্ল্যাক স্কিনফিটিং টিশার্ট পরেছে। ব্লু ডেনিম জিন্স। চোখে সানগ্লাস।


” ইয়াহ ওয়েল । ওয়াও! হ্যাল্লো হ্যান্ডসাম ! নাহ আমার মেয়ের চয়েজ মানতে হবে । হাহাহা ! এসো জিসান ভেতরে এসো। ” রীনা হেসে বলল।


জিসানের অস্বস্তি কমার কোনো লক্ষন নেই। আন্টির কাছে এমন ওয়েলকাম ও আশা করেনি।
জিসান গৌরাঙ্গীদের ঘরে প্রথম ঢুকলো।
রীনার ঘরে জিসান কে বসতে দিয়েছে । জিসান কাউচে বসেছে রীনা সোফায়।


আন্টি কে দারুন দেখাচ্ছে, জিসানের মত ছেলের ভীষন অস্বস্তি ফীল হচ্ছে, হয়ত ব্লাউজের ফাক দিয়ে অনেক টা বুক দেখা যাচ্ছে বলে নাকি কে জানে। ও তাকাতে পারছে না রীনা আন্টির দিকে , মেঝেতে তাকিয়ে আছে।


” জিসান, ডাইরেক্ট পয়েন্টে আসছি। বাড়িতে কে কে আছে জয়েন্ট ফ্যামিলি কিনা এসবের মধ্যে যাচ্ছি না, বাবার কি বিজনেস আছে আর তুমি কি এখন বিজনেসে ইনভল্ভড আছ ? ” রীনা সরাসরি প্রশ্ন করল।


জিসানের মাথার ভিতর টা গুলিয়ে উঠল , ও এমন প্রশ্ন আশা করেনি আন্টির কাছে। ও তো অনেক কিছুই আশা করেনি কিন্তু আজকে হচ্ছে জানে না শেষ পর্যন্ত আর কি অপেক্ষা করছে। জিসানের চটকা ভাংলো রীনার আওয়াজে।” জিসান ? হোয়াট হ্যাপেন্ড? তোমায় প্রশ্ন করলাম। ”


” ওহো হ্যা আমাদের তিনটে পেট্রলপাম্প আছে। গার্মেন্টস এর বিজনেস আছে। গার্মেন্টসে আমি কিছুটা ইনভলভড আছি। আর এখন স্টাডি করছি । বাবা হায়ার স্টাডির জন্য নিউইয়র্কে পাঠাবে বলছে আমি ঠিক করেছি যাবো না। ” জিসান ও জানে না একবারে আন্টির সামনে এত কথা কি করে বলে ফেলল।


“হ্যা যাবে কেন নিউইয়র্ক ! গেলে গৌরাঙ্গীকেও তো সঙ্গে চাই তাই না ! ” রীনা হেসে বলল।
” না আন্টি এমন কিছু না । ” জিসান লজ্জা পেয়ে বলল।


” ওয়াও । তোমার কথা শুনে তো মনে হচ্ছে আমাদের বাড়িতে তোমার বাবা মা বিয়ে দিতে চাইবেন না। তোমাদের মত ধনী বাড়ির মেয়ে খুজবে । আচ্ছা আমার প্রশ্ন গৌরাঙ্গীর জন্য তুমি কি কি করতে পারবে?” রীনা বলল।
” কি করতে হবে বলুন ? ” অস্বস্তি স্বত্তেও জিসান বলল।
” যা বলব করবে ? ” রীনা বলল


” হ্যা সব কিছুই করতে পারব । ” জিসান আজ জোশে এসে গেছে। গৌরাঙ্গীকে ছাড়া বেঁচে থাকার কথা ও ভাবতে পারে না। ওর জন্য যা পরীক্ষা দিতে হয় জিসান সেই পরীক্ষায় পাশ করবে।


” ওয়েল। চিরজীবন গৌরাঙ্গীর কেনা গোলাম হয়ে থাকতে পারবে? ওকে পুজো করবে । তোমার সব কিছু ওর করে দিতে পারবে? ” রীনা একশ্বাসে বলে গেল।


জিসান এর অবাক হওয়া এখোনো অনেক বাকি আছে। আন্টির কথা শুনে ও মাথা নীচু করে নিয়েছে । কি বলবে ভেবে পাচ্ছে না।
” অশোক । ” চেঁচিয়ে ডাক দিল রীনা।


শুধু জাঙ্গিয়া পরা অশোক ঘরে ঢুকলো, জিসান আজ কত কি দেখবে!
” হ্যান্ডকাফ টা জিসানের হাতে পরিয়ে দে। ” হুকুম করল রীনা, হাতে ধরা অশোক কে কন্ট্রোল করার যন্ত্র।
অশোক এগিয়ে আসছে জিসানের দিকে।


” হোয়াট দ্য হেল ! ” বলে কাউচ থে উঠে দাড়ালো জিসান।
ঠাস।
শান্ত, ভদ্র ছেলেকে কি করে লাইনে আনতে হয় পোড়খাওয়া রীনা ভালো করে জানা আছে।


সোফা থেকে উঠে এসে জিসানের গালে সজোরে চড় মারল রীনা। চড় খেয়ে হতবাক হয়ে গেছে জিসান। ওর বাবা মা কখোনো ওর গায়ে হাত তোলেনি আন্টি ওকে চড় মারল! এর পর আঘাত টা এলো নীচে থেকে । রীনা লাথি চালিয়েছে জিসানের দু পায়ের মাঝে। আঁক করে হাটু মুড়ে জিসান বসে পড়ল মেঝেতে। রীনা হবু জামাইয়ের চুলের মুঠি ধরে অশোক বলল ” দেখছিস কি শূয়োরের বাচ্চা? হাতে হ্যান্ডকাফ পরা। ”


অশোক পেছন থেকে জিসানের হাতে জোর লাগিয়ে একরকম জোর করেই জিসান কে পিছমোড়া করে হ্যান্ডকাফ পরালো।


চলবে……😧

No comments:

Post a Comment