HELLO SEXY LUND HOLDER FOR MORE PLEASE VISIT TELENOR T and CALL ME FOR REAL PHONE SEX / SMS @+1-984-207-6559 THANK YOU. YOUR X

Thursday, May 23, 2019

প্রেমিকের কবলে – ১

এই ঘটনা শুরু হয়েছিলো যখন আমরা কলকাতা থেকে মুম্বাই ট্রেনে করে ফিরছিলাম আমরা বলতে আমি আর মা আমি তখন ক্লাস থ্রি তে পড়ি গ্রীষ্মের ছুটিতে মামার বাড়িতে এসেছিলাম আমার বাবা মুম্বাই তে ভালো কোম্পানি তে কাজ করতো এবং কাজের জন্য সে তখন কলকাতায় আস্তে পারেনি আমাদের সাথে


যেদিন ট্রেনে করে ফিরছিলাম সেদিন আমাদের কোচে লোকটিকে প্রথম দেখেছিলাম আমরা ফার্স্ট ক্লাসে ভ্রমণ করছিলাম এবং আমাদের ওই কেবিনে শুধু আমি মা আর ওই লোকটি ছিলো


আমার মায়ের তখন মাঝ তিরিশ বয়েস আর দেখতে সুন্দরী টানা চোখ আর গোলাপি ঠোঁট , দেখলে বোঝা যাবে বনেদি ঘরের বৌ আর ওই দিকে লোকটির ছিলো পাথরের মতো চেহারা পুরুষালি লোমে ভর্তি শরীর , মাথায়ে আলতো টাক , তামাটে শরীর , বেশ মোটা কবজি আর ঠিক পালোয়ানের মত চেহারা


লোকটি প্রথমে আলাপ করেছিলো মায়ের সাথে এবং আস্তে আস্তে গল্প করা শুরু করেছিলো। লোকটির কথা বাত্রা মধ্যে একটা মিষ্টতা ছিলো


এখন মনে আছে একটা কথা যেটা লোকটা মাকে বলেছিল – ‘ভাগ্যিস আপনার সাথে দেখা হলো, নাহলে তো ভেবেছিলাম এই পুরো যাত্রা তা পুরো একা একা উদাসীন ভাবে কাটাতে হবে।


তাতে মা হাসতে হাসতে বলে বসলো -‘এরকম ক্ষেত্রে আপনি ঘুমিয়ে পড়বেন। ..’


লোকটি বলল -‘না আমার ঘুম আসে না


মা -‘তাই নাকি


লোকটি বলল -‘ তাই জন্য আপনাকে ট্রেন পেয়ে ভালো হলো


লোকটি আর মায়ের গল্প করা শুনছিলাম , তখন কি আর থোড়াই বুঝতাম লোকটি সেদিন আমার মাকে পটানোর চেষ্টা করছে যাই হোক গল্প করতে করতে জানতে পারা গেছিলো লোকটির নাম রজত শর্মা , পুলিশে ভালো পদে কাজ করে


পুলিশে কাজ করা কালে কিরকম ধরণের ক্রিমিনাল কেস সে সামলেছে তার সব গল্প মাকে শোনাচ্ছিলো আর মাও বেশ মনোযোগ দিয়ে সেই গল্প শুনছিলো লোকটি কথা বলতে বলতে মাকে বাবার ব্যাপারে এবং আমরা কোথায় থাকি তার খবর নেওয়ার চেষ্টা করেছিলো মায়ের কাছে কিন্তু মা দেখলাম সেইটা খুব চালাকি ভাবে এড়িয়ে গেলো


যাই হোক মানুষের ভাগ্যে যা লেখা আছে তা তো কেউ এড়াতে পারেনা , আমার মায়ের ভাগ্যে এই লোকটির সাথে একটা গোপন সম্পর্ক লেখা ছিলো এবং সেটা ঘটলো ট্রেন মহারাষ্ট্র ঢুকে আটকে গেলো তখন প্রায় মাঝ রাত আমরা জেগে উঠলাম ট্রেনে এসে টিকেট কন্ডাকটর জানালো ট্রেন আর যাবে না সামনে এক বড়ো দুর্ঘটনা হয়েছে লাইনে মা বেশ চিন্তিত হয়ে পড়লো


মাকে লোকটি বলল -‘আপনি একদম চিন্তা করবেন না। ….এই জায়গাটা আমার চেনা। ..এখানে সামনে এক হোটেলে আমি মাঝে মধ্যে উঠি আপনারা চলুন। ..এখানে তো ট্রেনে সারা রাত থাকার মানে হয়ে না


মা দেখলো ট্রেন থেকে অনেকে নামছিলো , রজত লোকটির দিকে তাকিয়ে -‘ আমার স্বামী কে একটু ফোন করে জানাতে চাই চিন্তা করবে কাল সকালে যদি আমরা ঠিক সময়ে না পৌছাই


রজত -‘চিন্তা করবেন না হোটেলে গিয়ে আপনি প্রথমে ফোন করে নেবেন
জানিনা কেনো লোকটির প্রতি মায়ের অগাধ বিশ্বাস এসে গেলো , হয়তো লোকটি পুলিশে চাকরি করে বলে


রজত লোকটির কথা মতো আমাকে নিয়ে মা স্টেশন নেমে গেলো লোকটির সাথে আমরা একটি হোটেলে গিয়ে উঠলাম


হোটেল টা একটু ছোট মতো অন্ধকার টাইপ ছিলো , তা দেখে মা রজত লোকটিকে বলল -‘হোটেল টা একটু কেমন যেন না


রজত লোকটি বলল -‘প্রিয়াঙ্কা। ..এখানকার হোটেল শহরের মতো চক চক হয়ে না। ..এটা ভালো হোটেল এখানকার


আমার মায়ের নাম প্রিয়াঙ্কা ট্রেনে কথা বলতে বলতে মায়ের নামটা জেনে ফেলেছিলো রজত লোকটি মা একটু ভয় পাচ্ছিলো হোটেল টা ঢুকতে কিন্তু রজত লোকটি মাকে আশ্বাস দিয়ে বলল -‘ভয় পেয়ো না প্রিয়াঙ্কা। ..আমি আছি তো


মা মুচকি হাসলো এবং লোকটির পিছু পিছু আমাকে নিয়ে ওই হোটেলে ঢুকলো হোটেল টা স্টেশনের কাছে ছিলো , হোটেলের মালিক দেখলাম রজত লোকটিকে চেনে রজত লোকটিকে দেখে বলল -‘স্যার আপনি !!!…এখানে


মাকে রজত লোকটি বলল -‘তুমি এখানে দাড়াও। ..প্রিয়াঙ্কা। ..আমি কথা বলে আসি রজত লোকটি সামনে গিয়ে লোকটির সাথে আড়ালে কথা বলতে লাগলো মায়ের মুখ খানা দেখে মনে হচ্ছিলো মা আফসোস করছিলো লোকটির সাথে এখানে আসাতে


এরপর লোকটি এসে মাকে বলল -‘এই রিসেপশনে ফোনে কথা বলতে পারো। ..যাও গিয়ে জানিয়ে দাও তোমার স্বামীকে


মা -‘ঠিক আছে


মা সামনে গিয়ে রিসেপশন ফোন হাতে নিয়ে নম্বর ডায়াল করতে লাগলো রজত লোকটি একটা সিগারেট বার করে পরম তৃপ্তি তে ফুঁকতে লাগলো


হোটেলের মালিক টি এইবার রিসেপশন ছেড়ে রজত লোকটির কাছে এসে বললাম -‘আপনার কথা মতো ওই বড়ো রুম টা খালি করে দিয়েছি


রজত লোকটি বলল -‘কি করতে হবে মনে আছে তো


হোটেলের মালিক বলল -‘ ওটা নিয়ে চিন্তা করবেন না।ওই অ্যাটাচ ডোর টা সবসময়ে ঢাকা থাকে। ..আর কেউ জ্বালাবে না
রজত লোকটি মুচকি হাসলো মা ফোন করে ফিরে আসতেই হোটেলের মালিক একটা চাবি মায়ের হাতে তুলে দিয়ে বলল -‘এই নিন ঘরের চাৰি


আমরা হোটেলের রুমে উঠলাম ওই রজত লোকটি পাশের রুমে উঠলো খুব ক্লান্ত ছিলাম বলে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম আমরা কিন্তু সেই রাত ছিলো এক বড়ো রাত আমাদের জন্য হঠাৎ আমার ঘুম ভেঙে গেলো মায়ের গোলার আওয়াজ শুনে , দেখলাম ঘুমের চোখে ঘরের হালকা আলোয়ে মা বিছানায়ে বসে হাত জোড় করে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে


মায়ের সামনে বসে আছে রজত লোকটি দেখলাম রজত লোকটির হাতে একটা পিস্তল যেটা আমার দিকে করানো রজত লোকটি বলছে -‘চুপ চাপ আমার কথা মতো উঠে আয়ে বিছানা ছেড়ে।..নাহলে এখনই প্রথম গুলিটা তোর ছেলের মাথায়ে ঢালবো


মা বলে বসলো -‘না ওকে কিছু করবেন না।আপনি আমায়ে যা বলবেন আমি তাই করবো


তখন রজত লোকটি বলল -‘তাহলে বেশি কথা না বলে আমার সাথে চল


মাকে টেনে তুলে ঘরের পাশে পর্দার কাছে নিয়ে গেলো পর্দার পিছনে একটা দরজা ছিলো সেখান দিয়ে মাকে নিয়ে ঘরের ভেতর থেকে উধাও হয়ে গেলো আমি বিছানা থেকে উঠে ওই দরজার কাছে গেলাম দেখলাম ওই দরজাটা পাশের ঘরে যেখানে রজত লোকটি ছিলো তার সাথে connected দরজা দিয়ে ঘরে ঢুকতেই দেখতে পেলাম রজত লোকটি মায়ের বস্ত্র হরণ শুরু করে দিয়েছিলো


মা একটু আলতো বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছিলো কিন্তু লোকটির বেশিক্ষন সময়ে লাগলো না মায়ের শাড়ি খুলে মাটিতে ছুড়ে ফেলতে মা ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছিলো


লোকটি আবার বন্দুক দেখিয়ে মাকে বলল -‘বেশি ন্যাকামো ভালো লাগছে না।এই বার যদি কান্না না থামিয়েছিস। ..তোর ছেলেকে খুন করবো আর তারপর তোকে এই হোটেলে বন্দি করে রাখবো এই হোটেলের ভেতর যা ঘটবে কেউ জানতে পারবে না শুধু জেনে রাখ। .. আর কোনোদিন পরিবারের মুখ দেখতে পারবি না শুধু একটা রাতের ব্যাপার এবার ভালো মেয়ের মতো বিছানায়ে ওঠ


মা কথা মতো ব্লাউস আর সায়া পড়া অবস্থায়ে বিছানায়ে গিয়ে বসলো রজত লোকটি এবার নিজের জামাটা খুলে , বন্ধুকটা টেবিলে রাখলো এবং মায়ের পাশে গিয়ে বসলো একটু বড় হলে হয়তো সেই রাত বন্দুকটা হাতে নিয়ে মাকে বাঁচিয়ে ফেলতে পারতাম কিন্তু তখনও আমি বুঝতে পারছিলাম না কি ঘটেছিলো মা আর রজত লোকটির মধ্যে


লোকটি মায়ের গালে হাত রেখে বলল -‘তুমি খুব সুন্দরী প্রিয়াঙ্কা। .. তোমার স্বামী খুব ভাগ্যবান তোমার মতো সুন্দরী বৌ পেয়েছে


মা লজ্জায় চোখ নামিয়ে ফেলল আর তারপর বলতে লাগলো – ‘আমার স্বামী যদি এই সব জেনে যায়।আমার সর্বনাশ হয়ে যাবে


রজত লোকটি মায়ের ঠোঁটের কাছে ঠোট টা নিয়ে এসে বলল -‘কেউ জানবে না….আমি তোমার সর্বনাশ চাই না শুধু তোমার সুন্দর যৌবন খানা একটু চেখে খেতে চাঁই


মা কিছু একটা বলতে যাচ্ছিলো কিন্তু তার আগে লোকটি মায়ের ঠোঁটের উপর ঠোঁট চুষতে উন্মাদের মতো মায়ের গোলাপি ঠোঁট খানা চুষে খাচ্ছিলো এতক্ষন ধরে মায়ের ঠোট খানা মুখে পুড়ে চুষছিলো , মা শেষ পর্যন্ত ধাক্কা মেরে লোকটার মুখ থেকে নিজের মুখ খানা আলাদা করলো মা বেচারি লোকটির মুখ থেকে নিজের মুখ খানা ছাড়িয়ে জোড়ে জোড়ে নিশ্বাস নিচ্ছিলো


মা গোলাপি ঠোঁটখানি রজত লোকটির লালায়ে আর চোষনে লাল হয়ে গিয়ে চক চক করছিলো মায়ের বুক খানি নিশ্বাস নেওয়ার সাথে সাথে উপর নিচ হচ্ছিলো


সঙ্গে থাকুন …

No comments:

Post a Comment